বিসিএস প্রস্তুতি আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী ২০১৯ || Model Test-01

0
263

BCS Preparation : BCS (বিসিএস) পরীক্ষার প্রস্ততির জন্য আন্তর্জাতিক বিষয়াবলীর উপর সাধারণ জ্ঞান বিষয়ক বিভিন্ন প্রশ্ন সমন্বিত এই MCQ সিরিজ তৈরী করা হয়েছে ।আপনাদের সুবিদার্থে প্রতি সপ্তাহের আপডেট দিয়ে দিব । এখান থেকে সব আপডেট গুলো পড়া হয়ে গেলে আপনাদের পরিক্ষা অনেক সহজ হয়ে যাবে । বিসিএস প্রস্তুতি আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী ২০১৯

বিসিএস প্রস্তুতি আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী ২০১৯



এক নজরে ১৭-টি সাম্প্রতিক বিষয়
*************
১। বানিজ্য যুদ্ধ
বাণিজ্য যুদ্ধ শুরু হয় চীন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে। ৬ জুলাই, ২০১৮ সালে বাণিজ্য যুদ্ধ শুরু হবার পর আর্জেন্টিনার বুয়েন্স আয়ার্সে জি-২০ এর সম্মেলন চলাকালীন এক বৈঠকে ১ ডিসেম্বর, ২০১৮ সালে ৯০ দিনের জন্য বাণিজ্যযুদ্ধ স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বাণিজ্য যুদ্ধের সময় দেশ দুটির মধ্যে পাল্টা-পাল্টি কর আরোপ করতে দেখা যায়।
.
২। রোহিঙ্গা সমস্যা
☛ ১৯৪৮ সালে বার্মা (বর্তমান- মিয়ানমার) স্বাধীনতা লাভ করলে আরকান বার্মার অঙ্গরাজ্যে পরিণত হয়। মিয়ানমারে সামরিক জান্তা সরকার ১৯৮১ সালে আরাকানের নাম পরিবর্তন করে রাখে রাখাইন রাজ্য। মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা নাগরিকত্ব হারায় ১৯৮২ সালে।


☛ ১৯৭৮ সাল থেকে রোহিঙ্গারা মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আসা শুরু করে। ২০১৭ সালের ২৫ই আগস্ট আরাকান স্যালভেশন আর্মি (ARSA) পুলিশ নিরাপত্তা চৌকিতে হামলা চালালে মিয়ানমার সরকার “অপারেশন্স ক্লিয়ারেন্স” চালায়।


☛ রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘের ৭২তম অধিবেশনে ৫ দফা প্রস্তাব পেশ করেন ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সালে।


☛ ২৩ নভেম্বর ২০১৮ সাল হতে রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠাতে “প্রত্যাবাসন চুক্তি” Arrangement on Return of Displaced Persons from Rakhaine State নামে স্বাক্ষরিত হয়। মিয়ানমার ও বাংলাদেশের মধ্যে প্রত্যাবাসন চুক্তি বাস্তবায়নে সহায়তা দেবে UNDP ও UNHCR.


☛ রোহিঙ্গাদের উপর সংঘঠিত নিপীড়নকে গণহত্যা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয় ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ সালে।
☛ কক্সবাজারের উখিয়ার ‘কুতুপালং’ বিশ্বের সবচেয়ে বড় শরণার্থী শিবির।
☛ রোহিঙ্গাদের উপর নির্মিত চলচ্চিত্র “A pair of Sandal” এর চলচ্চিত্রের নির্মাতা জসীম অাহমেদ।
.
৩। ব্রেক্সিট
☛ ২০১৬ সালের ২৩শে জুন গণভোট অনুষ্ঠিত হয়।
☛ BREXIT চুক্তি হয় লিসবন চুক্তির Article-50 অনুসারে।
☛ যুক্তরাজ্য ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য হয় ১৯৭৩ সালে।
☛ থেরেসা মে BREXIT এর ব্যাপারে Plan B পেশ করে এবং এর উপর ভোটাভুটি হয় জানুয়ারী, ২০১৯।
☛ নিয়মানুসারে ২৯ মার্চ, ২০১৯ যুক্তরাজ্যের ইউরোপীয় ইউনিয়ন হতে বেরিয়ে যাবার তারিখ নির্ধারিত হয়।
.
৪। উত্তর কোরিয়ার পরমাণু ইস্যু ও ট্রাম্প-কিম বৈঠক
☛৭০ বছর পর দুই কোরিয়ার মধ্যে ঐতিহাসিক সেনামিলন হয় ১২ ডিসেম্বর, ২০১৮ সালে।
☛ সিঙ্গাপুরের সেন্তোষা দ্বীপে ২০১৮ সালের ১২ই জুন ট্রাম্প ও কিমের মধ্যে ঐতিহাসিক Meeting of the Century স্বাক্ষরিত হয়।

বিসিএস প্রস্তুতি আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী ২০১৯


৫। জেরুজালেম ইস্যু
☛১৯৬৪ সালে গঠিত হয় PLO (Palestine Labor Organization)
☛মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে একতরফা ঘোষণা দেয় ৬ ডিসেম্বর, ২০১৭ সালে। ২০১৮ সালের ১৫মে তেল আরব থেকে জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস স্থানান্তর করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। উদ্বোধন করে ট্রাম্প কন্যা ইভাঙ্কা ট্রাম্প।
☛১৬ অক্টোবর, ২০১৮ সালে তেল আবিব থেকে জেরুজালেমে দূতাবাস সরিয়ে অানার ঘোষণা দেয় অস্ট্রেলিয়া।
☛ যুক্তরাষ্ট্রের পর দ্বিতীয় দেশ হিসেবে জেরুজালেমে দূতাবাস স্থাপন করে গুয়েতেমালা।
.
☛ ১৯ জুলাই, ২০১৮ সালে ইসরাইলের পার্লামেন্টে এক নতুন আইন পাস করে। আইন অনুসারে ইসরাইল হয় ইহুদী রাষ্ট্র এবং অখণ্ড জেরুজালেম হয় ইসরাইলের রাজধানী।
.
৬। জামাল খাশোগী হত্যাকাণ্ড
২ অক্টোবর, ২০১৮ সালে তুরস্কের ইস্তান্বুলে সৌদি আরবের কনস্যুলেটে প্রবেশের পর ব্যাগ দিয়ে ঢেকে ফেলে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয় সৌদি অনুসন্ধানী সাংবাদিক জামাল খাসোগীকে।
☛ জামাল খাসোগি ছিলেন মুসলিম ব্রাদারহুডপন্থী সৌদি রাজপরিবারের সমালোচক।
☛ সৌদি সাংবাদিক মোহাম্মদ বিন সালমানের বিপক্ষে হত্যার অভিযোগ ওঠে।
.
৭। ইয়েলো ভেস্ট
☛ জ্বালানী তেলের উপর বাড়তি কর আরোপের সরকারী সিদ্ধান্তের কারণে ইয়েলো ভেস্ট বা হলুদ জ্যাকেট নামে আন্দোলন হয় ফ্রান্সে।
☛ আন্দোলন শুরু হয় ১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ফ্রান্সের ভেসৌল শহরে।
☛ ফ্রান্সের সরকার প্রধান যেহেতু মহামান্য প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখো, তাই তার নামটা জানতে হবে
☛ আন্দোলনে ব্যাপকতা দেখে একে ১৯৬৮ সালের অভ্যুত্থানের সাথে তুলনা করেন।
.
৮। দক্ষিণ চীন সাগরীয় উত্তাপ
– দক্ষিণ চীন সাগরে রয়েছে স্প্রাটলি দ্বীপপুঞ্জ। যুক্তরাষ্ট্রের অভিযোগ দক্ষিণ চীন সাগরে কৃত্রিম দ্বীপ গঠনের অভিযোগ তোলে যুক্তরাষ্ট্র।
– চীন ও ভিয়েতনামের মধ্যে বিরোধপূর্ণ দ্বীপপুঞ্জ হচ্ছে~ স্প্রাটলি, প্যারোসেন, ম্যাকলেস ফিল্ড ব্যাংক।
– প্যারোসেন দ্বীপপুঞ্জ নিয়ে চীন ও তাইওয়ানের বিরোধ রয়েছে।
-চীনের স্পেশাল সিকিউরিটি বাহিনী যা গ্যারিসন সৈন্য নামে পরিচিত, চীন সাগরের নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছে।
– প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় নিরাপত্তা বিষয়ক আবাসিক প্রতিনিধি যুক্তরাষ্ট্র।
– নাইন ড্যাস লাইনঃ দক্ষিণ চীন সাগরে অবস্থিত চীনের সীমারেখা। এই সীমারেখাটি দেয়া হয় ১৯৪৭ সালে। ইউ “U” আকৃতির এই সীমারেখাটির অন্য নাম টেন ড্যাস লাইন বা ইলেভেন ড্যাস লাইন। এই অঞ্চলে স্প্রাটলি ও প্যারোসেন দ্বীপপুঞ্জ অবস্থিত।
.
৯। ইরানের পরমাণু ইস্যু এবং P5+1
২০১৫ সালের ১৪ই জুলাই জাতিসংঘের স্থায়ী ৫ দেশ (যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, চীন) ও জার্মানি (P5+1) এর সাথে ইরানের Joint Comprehensive Plan of Acrion নামে একটি চুক্তি সাক্ষরিত হয় । যুক্তরাষ্ট্র ইরানের সাথে স্বাক্ষরিত P5+1 চুক্তি থেকে নিজেদের নাম প্রত্যাহার করে নেয়- মে, ২০১৮ সালে।
.
১০। কাতালোনিয়ার স্বাধীনতা ইস্যু
☛ কাতালোনিয়া স্পেনের একটি স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল যার আয়তন ১২, ৩৯৭ বর্গমাইল।
☛ কাতালোনিয়ার রাজধানীর নাম বার্সেলোনা যা স্পেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর।
☛ কাতালোনিয়ার বৃহত চারটি হলো জিরনা, তারাগোনা, লেইদা, বার্সেলোনা।
☛১ অক্টোবর, ২০১৭ সালে কাতালোনিয়ার গণভোট অনুষ্ঠিত হয়।
☛ কাতালোনিয়ার স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতৃত্ব দেন কার্লোস পুজদেমন।
১১। সিরিয়া ইস্যু
☛ ইসরাইল গোলান হাইটস বা গোলান মালভূমি (দক্ষিণ-পশ্চিম সিরিয়ার একটি পাথুরে মালভূমি) দখল করে ছিল ৫২ বছর আগে ১৯৬৭ সালের ইসরাইল-আরব যুদ্ধে। ১৯৭৩ সালের চতুর্থ আরব-ইসরাইল যুদ্ধে সিরিয়া এই গোলান হাইটস ফেরানোর চেষ্টা করেও পারেনি। ১৯৮১ সালে ইসরাইল গোলানকে নিজের অংশ হিসেবে দাবী করে দ্রুজ সম্প্রদায়ের লোকজনকে এখানে বসবাসের জায়গা করে দেয়।

২৫ শে মার্চ, ২০১৯ সালে গোলান হাইটসকে আনুষ্ঠানিকভাবে ইসরাইলের অংশ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।
☛১৯৭১ সালে হাফিজ আল আসাদ ক্যু এ মাধ্যেম নুরদ্দীন আল আত্তাসীকে ক্ষমতাচ্যুত করে প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন। হাফিজ আল বাশারের পর ক্ষমতার মসনদ দখলে নেন পুত্র বাশার আল আসাদ ২০০০ সালে।


☛ বারাক ওবামা আমল থেকেই বাশারকে আল আসাদকে “জানোয়ার আসাদ” আখ্যা দিয়ে বলা হয় তাকে ক্ষমতা থেকে চলে যেতে হবে। জাতিসংঘে সাবেক মার্কিন দূত নিকি হ্যালী বলেছে- যেকোন মূল্যে আসাদকে চলে যেতে হবে। সিরিয়া সঙ্কটের অন্যতম কারণ হলো বাশারের ক্ষমতা আকড়ে ধরে থাকা।

সিরিয়ায় আইএস-এর মূলোৎপাটন হয়েছে দাবী করে যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়া থেকে সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮। সিরিয়া থেকে এভাবে সেনা প্রত্যাহারের ঘটনাকে অনেকে মনে করছে, ইসরাইলকে গোলান মালভূমি দিয়ে বাশারকে ক্ষমতায় রাখা।
☛ সিরিয়া ইস্যুতে তুরস্ক কুর্দি অধ্যুষিত আফরিনে অপারেশন অলিভ ব্রাঞ্চ পরিচালনা করে। এই কারণে যুক্তরাষ্ট্র- তুরস্কের সম্পর্কের অবনতি ঘটে।
☛ সিরিয়া সঙ্কটে আলোচিত সিরিয়ান শহরগুলোর নাম~ আলেপ্পো, পালমিরা, আফরিন, ইদলিব, দারা।
১২। কাশ্মীর ইস্যু
– ১৪ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ কাশ্মিরের পুলওয়ামায় অাক্রমণের ঘটনা ঘটে। এই অাক্রমণের দায় স্বীকার করে জইশ-ই-মুহাম্মদ নামে একটি সংগঠন। প্রতিশোধের জন্য ভারত পাকিস্তানে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক পরিচালনা করে। পারিপার্শ্বিক ক্ষয়-ক্ষতি যতটা সম্ভব কম রেখে লক্ষ্যবস্তুকে অাঘাত হানার ঘটনাকে বলে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক।
.
– ভারত শাসিত কাশ্মিরকে বলা হয় জম্মু-কাশ্মির, পাকিস্তান শাসিত কাশ্মিরের নাম অাজাদ কাশ্মির, চীন শাসিত কাশ্মির অাকসাই চীন নামে পরিচিত।
.
১৩। ভেনিজুয়েলার সাম্প্রতিক পরিস্থিতি
ঘটনা এখনও ঘটতেছে। তবে ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝির পরের প্রশ্ন পড়ার দরকার নাই।
– ২০১৮ সালের মে মাসে ভেনেজুয়েলার নির্বাচন হয়। নির্বাচনে জয়ী হয় নিকোলাস মাদুরো। নিকোলাস মাদুরোর বিপক্ষে নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ ওঠে। মুদ্রাস্ফীতি অর্থনীতিকে চরম অাঘাত করে। এসবই ভেনেজুয়েলা সংকটের কারণ।


– অনেক বেশি তেল রিজার্ভের দেশ হলেও ভেনেজুয়েলাকে অর্থনৈতিক সংকটে পড়তে হয়। এর কারণ হিসেবে নিকোলাস মাদুরো যুক্তরাষ্ট্রকে দায়ী করে।
– ভেনেজুয়েলা সংকটের শান্তিপূর্ণ সমাধানে পেরুর রাজধানী লিমায় কানাডা ও ল্যাটিন অামেরিকার দেশসমূহ মিলে গড়ে তোলে ‘লিমা গ্রুপ’


১৪। নেলসন ম্যান্ডেলার জন্মশতবার্ষিকী
– ১৮ই জুলাই, ২০১৮ খ্রি. তারিখে দক্ষিণ অাফ্রিকার বর্ণবাদী অান্দোলনের অবিসংবাদিত নেতার শততম জন্মবার্ষিকী পালিত হয়। দক্ষিণ অাফ্রিকা শ্বেতাঙ্গ শাসনে ছিল ৩৪২ বছর।
.
১৫। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সমাপ্তির শত বছর
– প্রথম বিশ্বযুদ্ধ মেয়াদ (২৮জুন, ১৯১৪- ১১ নভেম্বর, ১৯১৮)। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের অবসানের শতবর্ষ পূর্তি পালিত হয় ১১ নভেম্বর, ১৯১৮ সালে।

বিসিএস প্রস্তুতি আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী ২০১৯


১৬। ড. উড্রো উইলসনের চৌদ্দদফা,জাতিপুঞ্জ এবং দ্বিতীয় ভার্সাই চুক্তি-
☛ প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময়কালঃ (২৮ শে জুলাই, ১৯১৪– ১১ ই নভেম্বর , ১৯১৮)
☛ কারণঃ অনেক গুলো কারণের মধ্যে একটি কারণ ২৮ শে জুন বসনিয়া-হর্জেগোভিনার সারায়েভো শহরে অস্ট্রিয়ার যুবরাজকে হত্যা। যার ফলে অস্ট্রিয়া ও হাঙ্গেরী ২৮ শে জুলাই যুদ্ধ ঘোষণা করেন ।


(ঘটনার বিবরণঃ অস্ট্রিয়ার হবু সম্রাট ও সম্রাজ্ঞী, আর্কডিউক ফার্ডিনান্ড এবং সুন্দরী সুফ্যি, বসনিয়া সফরে গেলেন ২৮ জুন, ১৯১৪। রাজধানী সারায়েভোতে যুবরাজ দম্পতি। গাবরিলো প্রিন্সিপ নামে এক আততায়ীর হাতে প্রাণ হারালেন, অস্ট্রিয়ান যুবরাজ দম্পতি। এই দুটো খুন হয়ে উঠল আরো কোটি প্রাণ নেয়ার কারণ।


গাবরিলো প্রিন্সিপ অস্ট্রীয় নাগরিক হলেও জাতি হিসেবে সার্ব ছিলেন। তাই অস্ট্রিয়া সার্বিয়াকে জানাল, এর যথার্থ বিচার চাই। আমাদের যুবরাজ দম্পতি হত্যার ক্ষতিপূরণ চাই। সার্বিয়া কিছু শর্ত মানলো, কিছু মানলো না। অস্ট্রিয়া ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিলো এবং সময়ও ফুরিয়ে গেল।
২৮ জুলাই, ১৯১৪ ইং তারিখে অস্ট্রো-হাঙ্গেরি যুদ্ধ ঘোষণা করলো সার্বিয়ার বিরুদ্ধে। অস্ট্রিয়াকে জোর সাপোর্ট দিল জার্মানি।
এদিকে রাশিয়া সার্বিয়ার বন্ধু রাষ্ট্র। তাই সার্বিয়ার পক্ষে এলো মিত্র শক্তি (Allied Power) ফ্রান্স, বৃটেন, ইতালি, জাপান (একমাত্র এশীয় সক্রিয় দেশ)। জার্মানি সহ অস্ট্রিয়ার সাথে ছিল Central Power হিসেবে অটোমান সাম্রাজ্য এবং বুলগেরিয়া।)


☛ আমেরিকার প্রেসিডেন্টঃ ১ম বিশ্বযুদ্ধের সময় আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ছিলেন ড. উড্রো উইলসন (২৮ তম)।
☛ অক্ষ শক্তিঃ হাঙ্গেরী, বুলগেরিয়া, অস্ট্রিয়া, তুরস্ক, জার্মানী । মনে রাখার নিয়ম: হাবুল অতুর কে জামা উপহার দিল ।
☛ মিত্র শক্তিঃ রাশিয়া, জাপান, রোমানিয়া, বেলজিয়াম, ব্রিটেন, গ্রীস, সার্বিয়া, পর্তুগাল, ফ্রান্স । মনে রাখার নিয়ম: রাজা মেয়ে রোমা ও বেবিকে নিয়ে গ্রীসে সাপের ফ্রাই খেতে গেল ।
ফ্রান্স, বৃটেন, রাশিয়া সহ বিশ্বের শক্তিধর রাষ্ট্র গুলোর জড়ানোর পেছনে আরো কিছু কারণঃ
☛ শিল্প বিপ্লবের ফলে কাঁচামাল সংগ্রহ ও তৈরি পণ্য বিক্রির জন্য উপনিবেশ স্থাপনের অসম প্রতিযোগিতা;
☛ পূর্ব শত্রুতা
☛ জার্মানির উত্থানকে ভালো চোখে না দেখা
☛ জার্মানির উগ্রতা ইত্যাদি
যুদ্ধটা আরও ভয়াবহ হলো যখন জার্মানি আমেরিকা কে আঘাত করল আর আমেরিকাও মিত্র শক্তির পক্ষ নিয়ে যুদ্ধে নেমে এল। ইতিহাসের ভয়ংকর আর নৃশংসতম সময় ছিল ৪ বছরের চেয়ে বেশি এই সময় টা! অবশেষে, সারা বিশ্বকে ধ্বংস স্তুপ করার পর, ১১ নভেম্বর ১৯১৮ সালে জার্মানির আত্মসমর্পনের মাধ্যমে শেষ হয়েছিল এ মহাযুদ্ধ।
#১ম_বিশ্বযুদ্ধের_ফলাফলঃ
✏ রোমান, অটোমান, অস্ট্রিয়ান সাম্রাজ্যের পতন
✏ নতুন করে কিছু স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা
#১ম_বিশ্ব যুদ্ধের পরের যুদ্ধঃ
১ম বিশ্বযুদ্ধে কেন্দ্রীয় শক্তির সাথে একে একে রাশিয়া, জাপান, রোমানিয়া, বেলজিয়াম, ব্রিটেন, গ্রীস, সার্বিয়া, পর্তুগাল, ফ্রান্স (রাজা মেয়ে রোমা ও বেবিকে নিয়ে গ্রীসে সাপের ফ্রাই খেতে গেল) মিত্র শক্তি হয়ে সার্বিয়ার পাশে আসতে গিয়ে ভয়ংকর যুদ্ধে নামে।
এর পরের ঘটনাঃ
অক্টোবর, ১৯১৮
জার্মানি বুঝতে পারলো, সব কিছুর বাড়াবাড়ির পরিণতি। আমেরিকা কে প্রস্তাব দিল যুদ্ধ বিরতির। আমেরিকা দিল ১৪ দফা।
নভেম্বর ১৯১৮:

১১ নভেম্বর জার্মানি আনুষ্ঠানিক ভাবে যুদ্ধ বন্দ্ধের ঘোষনা দিয়ে আত্মসমর্পণ করে।
২য় ভার্সাই চুক্তি: (২য় বিশ্ব যুদ্ধের বীজ)
১৯১৯ সালের জুন মাসের ২৮ তারিখ।
মিত্র শক্তির ৪ নেতা (U.K, U.S.A, FRANCE, ITALY) সহ সবাই মিলিত হলো ফ্রান্সের ভার্সাই নগরীতে।
☛ জার্মানিকে যুদ্ধাপরাধী ঘোষণা করা হলো।


☛ জার্মানির অনেক অংশ প্রায় ১০% হারে মিত্র শক্তি গ্রহণ করে নিল।
☛ ফ্রান্স, পোল্যান্ড, বেলজিয়াম সহ অনেক রাষ্ট্রই জার্মানির থেকে অংশ গ্রহণ করলো।
☛ জার্মানির অন্যতম বন্দর, কলোনি (Cameroon,Togo,Ruanda,Urundi etc) নিয়ে নিলো।
☛ জার্মানীকে বিশাল অংকের জরিমানা দিতে বাধ্য করা হলো, এ জরিমানা কিস্তি হারে দিতে হবে বলে জানানো হলো।মোট কথা, জার্মানিকে এক রকম আত্মঘাতী চুক্তিতে সই করতে বাধ্য করা হলো।


১৯১৯ সালের ২৮ জুন, স্বাক্ষরিত হলো এই চুক্তি। যার নাম দেয়া হল Treaty of Peace. যা পরবর্তিতে শান্তির পরিবর্তে অশান্তি আর রোষের জন্ম দিলো। ১৯২০ সালের ১০ জানুয়ারি,
কার্যকর হলো এই চুক্তি আর সাথে বিশ্ব শান্তির জন্য প্রতিষ্ঠা করা হলো Leage of Nations বা সম্মিলিত জাতিপুঞ্জ। জাতিপুঞ্জ কতটা শান্তি রক্ষা করতে পেরেছে, তা বিশ্ববাসী টের পেয়েছে প্রায় ১৯/২০ বছর পর দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়।
.
১৭। ফিলিপাইনের স্বায়ত্বশাসিত অঞ্চল বংসামরো
– Nation of the Moro বা মরো জাতির দেশ নামে পরিচিত। ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি স্বায়ত্বশাসিত অঞ্চল হিসেবে অাত্মপ্রকাশ করে।
– MNLF- Moro National Liberation Front (প্রতিষ্ঠিত হয়- ১৯৭২ সালে) নামক রাজনৈতিক সংগঠন এই অঞ্চলের অান্দোলনের জন্য সংগঠিত মুসলিম গ্রুপ। অান্দোলনের অন্তর্বতীকালীন নেতা নির্বাচিত হন মুরাদ ইব্রাহিম।

বিসিএস প্রস্তুতি আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী ২০১৯

আরো যেভাবে খুজা হয় : বিসিএস প্রস্তুতি সুশান্ত পাল,সুশান্ত পালের বিসিএস টিপস,৪০ তম বিসিএস প্রস্তুতি সুশান্ত পাল,বিসিএস প্রস্তুতি বই,বিসিএস প্রস্তুতি সাধারণ জ্ঞান

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here